October 30, 2020

Banner Here
কালীগঞ্জের কুঁড়েঘরের আসমানী দেখছে বিশাল আকাশ
কালীগঞ্জের কুঁড়েঘরের আসমানী দেখছে বিশাল আকাশ

সাবজাল হোসেন, ষ্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহের চোখ-

প্রথম আলো,দৈনিক ইত্তেফাক,সংবাদ, সমকাল, যুগান্তর,মানবকন্ঠসহ বিভিন্ন জাতীয় ও আঞ্চলিক পত্র পত্রিকা, অনলাইন পোর্টালে প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়া ঝিনাইদহ কালীগঞ্জের সেই হতদরিদ্র অদম্য মেধাবী আসমানীর পাশে দাঁড়ালেন অনেকে। সে পরিবারের শত অভাব মাড়িয়ে বিগত এসএসসিতে জিপিএ ৫ পেয়েছিল। কিন্ত অভাবের সংসারে তার পরিবারের পক্ষে কলেজে ভর্তি ও লেখাপড়ার খরচ যোগানো সম্ভব ছিলনা।

এ দৈন্যতার কথা তুলে ধরে ”ভাঙা ঘরে চাঁদের আলো”অভাব রুখতে পারেনি আসমানীকে” বিভিন্ন শিরোনামে পত্র পত্রিকায় খবর প্রকাশিত হয়। এরপর তার অধ্যাবসায়ের স্বীকৃতিস্বরুপ লেখাপড়া চালিয়ে যেতে অনেকে মহত্বের হাত বাড়িয়েছেন।

আসমানীর বাবা ওলিয়ার রহমান জানান, মাঠে আমার কোন চাষযোগ্য জমি নেই। পরের ক্ষেতে কামলার কাজ করে সংসার চালাই। এরমধ্যে মেয়ে আসমানী পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করলেও কলেজে ভর্তি ফি ও অন্যান্য খরচ যোগাড় করা আমার পক্ষে সম্ভব ছিলনা। ফলে মেয়েকে নিয়ে পড়েছিলাম মহাচিন্তায়।

এরপর পত্রিকায় খবর প্রকাশিত হলে লন্ডন প্রবাসী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক আশিক আল ফেরদৌস ভর্তি ফি বাবদ বিকাশে ৩ হাজার টাকা পাঠিয়েছেন। ১৯৪৮ সালে প্রতিষ্ঠিত যশোর, মাগুরা, নড়াইল ও ঝিনাইদহ জেলার পেশাজীবিদের নিয়ে কবি গোলাম মোস্তফার হাতে গড়া সংগঠন ”বৃহত্তর যশোর সমিতি” এককালীন ৫ হাজার ও প্রতিমাসে ২ হাজার করে টাকা দিয়ে যাচ্ছেন। ঢাকায় বসবাসকারী খোরশেদ আলম লেখাপড়ার সহযোগীতায় আড়াই হাজার ও মোস্তাফিজুর রহমান জুয়েল নামের এক ব্যক্তি ৩ হাজার টাকা বিকাশে পাঠিয়ে ভর্তিতে সহযোগীতা করেছেন।

এছাড়াও তারা পরবর্তীতে প্রয়োজন মত জানাতে বলেছেন। ঝিনাইদহ জেলার বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়–য়া শিক্ষার্থীদের সংগঠন ”হেল্পফুল হ্যান্ডস আসমানীর কলেজের যাতায়াত খরচ বাবদ প্রতিমাসে ৮’শ করে টাকা ও শিক্ষা উপকরন দিচ্ছেন।

উল্লেখ্য, আসমানী অত্যন্ত মেধাবী ও হতদরিদ্র পরিবারের সন্তান হলেও অদম্য মেধার অধিকারী। উপজেলার ডাউটি গ্রামের দিনমজুর ওলিয়ার রহমানের মেয়ে ও কোলাবাজার ইউনাইটেড হাইস্কুল থেকে আসমানীও নানা অভাবের মধ্যদিয়ে লেখাপড়া করে জিপিএ -৫ পেয়ে সকলকে চমকে দিয়েছিল।

আসমানীর মা নাছিমা বেগম জানান, সংসারে সারাবছর অভাব থাকে। এর মধ্যদিয়েই মেয়ে আসমানী লেখাপড়া চালিয়েছে। কিন্ত মেয়েকে একটি ভাল কলেজে ভর্তি করার বিষয়টি ছিল তাদের জন্য দিবাস্বপ্নের মত। কিন্ত পত্র পত্রিকায় খবর প্রকাশের পর অনেকেই মহত্বের হাত বাড়িয়ে আমাদের চিন্তামুক্ত করেছেন। তাদের আর্থিক সহযোগীতায় মেয়ের লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়ার আশার আলো দেখছেন তারা।

এদিকে হতদরিদ্র মেধাবী আসমানীর পরিবার ভূমিহীন হওয়ায় সুযোগ আসলে সরকারী সুবিধা নিশ্চিতের সুপারিশ করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন কালীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ভুপালি রানি সরকার।

image_print

Theme.Com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


     আরও সংবাদ

Add