July 12, 2020

Banner Here
ঝিনাইদহে নতুন করে আরও ৩ জন করোনায় আক্রান্ত
ঝিনাইদহে নতুন করে আরও ৩ জন করোনায় আক্রান্ত

ঝিনাইদহের চোখঃ
ঝিনাইদহ জেলায় প্রায় ৮০ ভাগ সরকারি প্রাইমারি স্কুলে নেই কোনো শহীদ মিনার। আবার অনেক মাধ্যমিক বিদ্যালয়েও শহীদ মিনার নেই। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা কলাগাছ দিয়ে অস্থায়ী শহীদ মিনার তৈরি করে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের সম্মান জানায়। কতগুলো প্রাইমারি বা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নেই তার তথ্য জেলা শিক্ষা অফিসে নেই।

জেলা প্রাইমারি শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, ঝিনাইদহ জেলায় ৯’শ ৭টি সরকারি প্রাইমারি স্কুল আছে। এসব স্কুলে অনেক টাকা ব্যয়ে নতুন ভবন নির্মাণ হয়েছে। নির্মাণ হয়েছে সুন্দর ওয়াশরুম। এমনকি অনেক টাকা ব্যয়ে গেট নির্মাণ করা হয়েছে। বিদ্যালয়ের পরিবেশেও সুন্দর হয়েছে। শুধু নির্মাণ করা হয়নি শহীদ মিনার। শিক্ষার্থীরা চাই তাদের স্কুলে শহীদ মিনার নির্মাণ করা হোক। জেলায় মাধ্যমিক বিদ্যালয় আছে ২’শ ৯৭টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় আছে। তার মধ্যে অনেক গুলোতে শহীদ মিনার নেই। শহীদ মিনার নির্মাণের ব্যাপারে কারো গরজ নেই।

ভ্টাই সরকারি প্রাইমারি স্কুলের ৫ম শ্রেণির ছাত্র নাহিদ ইসলাম নিরব বলেন, তাদের স্কুলে শহীদ মিনার না থাকায় অন্য স্কুলে গিয়ে শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শহীদদের সম্মান জানতে হয়। তাদের স্কুলে একটি শহীদ মিনার নির্মাণের দাবি তার।

ভগবাননগর সরকারি প্রাইমারি স্কুলের ছাত্রী শাম্মী বলেন, তাদের স্কুলে শহীদ মিনার নেই। কলাগাছ দিয়ে শহীদ মিনার তৈরি করে ফুল দেয় তারা।

বাজুখালী সরকারি প্রাইমারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ বলেন, তার স্কুলে শহীদ মিনার নেই। ৪ কিলোমিটার দূরে গাড়াগঞ্জ হাইস্কুলের শহীদ মিনারে গিয়ে শিক্ষক শিক্ষার্থীরা ফুল দেন।

এ বিষয়ে জেলা প্রাইমারি শিক্ষা অফিসার মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, জেলার অনেক প্রাইমারি স্কুলে শহীদ মিনার নেই। স্থানীয়দের সহযোগিতায় শহীদ মিনার নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সুশান্ত কুমার দেব জানান, জেলায় ২৯৭টি মাধ্যমিক স্কুল আছে। তার মধ্যে অনেক স্কুলে শহীদ মিনার নেই। তরে শহীদ মিনার নির্মাণের কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে।

image_print

Theme.Com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


     আরও সংবাদ

Add